পীরগঞ্জে খেটে খাওয়াদের পাশে থাকার চেষ্টা সমাজকর্মী তারেকের

কয়েক জন স্বেচ্ছাসেবককে সাথে নিয়ে করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় সাধারন খেটে খাওয়া মানুষ সহ বিভিন্ন পেশাজীবিদের সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন প্রভাষক ও সমাজকর্মী তারেক হোসেন। মানুষকে সচেতন করার পাশাপাশি প্রায় প্রতিদিনই খাদ্য সামগ্রী, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সাবান, মাস্ক ও শিশুদের বিনোদন সামগ্রী নিয়ে ছুটছেন পাড়ায় পাড়ায়। দুর্যোগকালিন সময়ে তার এ ধরণের উদ্যোগ এলাকার মানুষ সহ সব মহলের নজর কেড়েছে।

তিনি ঠাকুরগাওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার আদর্শ কলেজের প্রভাষক তারেক হোসেন। ৫ বারের নির্বাচিত সাবেক এক ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে তিনি। পিতা আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে ছাত্র জীবন থেকেই অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর কাজ করে আসছেন তিনি। দেশে করোনা সংকটের শুরু থেকেই দোয়েল সংস্থা নামে একটি স্বেচ্ছাসেবি সংগঠনের কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবককে সাথে নিয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে গ্রামে গ্রামে লিফলেট বিতরণ, সাবান সহ হ্যন্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ, জীবাণুনাশক স্প্রে করা, হ্যান্ড মাইকে স্বাস্থ্য বার্তা প্রচার, কর্মহীন হোটেল শ্রমিক, রিক্্রাভ্যান চালক, গ্রামপুলিশ, আদিবাসিসহ দরিদ্রদের মাঝে চাল-ডাল, তেল, আলুসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বিতরণ করে আসছেন তিনি।

এছাড়াও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ঘড়বন্দি শিশুদের মানষিক বিকাশে বাড়ি বাড়ি গিয়ে লুড়ু, ডাবা, গল্পের বই সহ বিভিন্ন সুস্থ্য বিনোদন সামগ্রী বিতরণ করা সহ সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার উদ্যোগ এরই মধ্যে বিভিন্ন মহলে প্রশংসা কুড়িয়েছে। জসাইপাড়া গ্রামের আব্দুস সহিদ, ভোমরাদহের বেলাল, সুবল, উজ্জল সহ বেশ কয়েকজন বলেন করোনা দুর্যোগের সময় গ্রামে গ্রামে কলেজ শিক্ষক তারেকের নানাামুখী কর্মকান্ড এলাকার বিভিন্ন মহলের নজর কেড়েছে। এভাবে সবাই এগিয়ে আসলে করোনা দুর্যোগ, কোন দুর্যোগই মনে হবে না।

প্রভাষক তারেক হোসেন বলেন, ‘এ দুর্যোগে প্রত্যেকটি সামর্থবান মানুষের উচিত সাধারন খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষের পাশে দাঁড়ানো। সে লক্ষে তাঁদের পাশে থেকে সামান্য সেবা দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’