,
সংবাদ শিরোনাম :

উ. কোরিয়ার সঙ্গে ‘সরাসরি যোগাযোগ’ যুক্তরাষ্ট্রের

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র যোগাযোগ শুরু করেছে বলে দাবি করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন । শনিবার তিনি জানান, পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচি বন্ধ করতে পিয়ংইয়ং সরকার প্রস্তুত রয়েছে কিনা খতিয়ে দেখার জন্য এ যোগাযোগ শুরু হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদন থেকে এসব কথা জানা গেছে।
উত্তর কোরিয়া সম্প্রতি হাইড্রোজেন বোমা তৈরির ঘোষণা দিয়েছে। এ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনের মধ্যে বাকযুদ্ধ এখন তুঙ্গে। এমন পরিস্থিতিতেই চীন সফরে গিয়ে সেদেশের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-এর সাথে বৈঠক করার পর টিলারসন বলেন, “আমাদের কাছে পিয়ংইয়ংয়ের সঙ্গে যোগাযোগ আছে। আমরা অন্ধকার পরিস্থিতিতে নেই।”

উত্তর কোরিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেও চীন চাইছে যেন যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া আলোচনা শুরু করে।

বেইজিংয়ে চীনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপের পর সাংবাদিকদের টিলারসন বলেন, উত্তর কোরিয়ার বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র খতিয়ে দেখছে, আপনারা প্রস্তুত থাকুন। উত্তর কোরিয়া পরমাণু বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র জানতে চেয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, পিয়ংইয়ংয়েরে সঙ্গে তিনটি মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, চাইলেই উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র কথা বলতে কথা বলতে পারে এবং কথা বলে। ওয়াশিংটন এবং পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যে বেইজিং মধ্যস্থতা করছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নিজস্ব মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে।

উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে দুই দেশের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বাকযুদ্ধ চলছে; সম্প্রতি যা চরম রূপ নিয়েছে। এর আগেও দুই দেশের মধ্যে সরাসরি যোগাযোগের চ্যানেল থাকার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন। নভেম্বরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চীন সফরের প্রস্তুতি নিয়ে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিবিদের আলাপের জন্য বেইজিং সফর করছেন টিলারসন। উত্তর কোরিয়ার সবচেয়ে ঘনিষ্ট আন্তর্জাতিক মিত্র চীন। যুক্তরাষ্ট্র একাধিকবার চীনের বিরুদ্ধে উত্তর কোরিয়াকে থামাতে যথেষ্ট পদক্ষেপ না নেওয়ার অভিযোগ তুলেছে। তবে চীন দাবি করে আসছে, জাতিসংঘ আরোপিত সবগুলো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করেছে দেশটি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চীনের সহযোগিতা চায়। বেইজিংয়ে চীনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপের পর সাংবাদিকদের তিনি বলেন, উত্তর কোরিয়ার বিষয়টি আমেরিকা খতিয়ে দেখছে, আপনারা প্রস্তুত থাকুন। উত্তর কোরিয়া পরমাণু বিষয়ে আমেরিকা জানতে চেয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, পিয়ংইয়ংয়েরে সঙ্গে তিনটি মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে।

পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচি বন্ধ করতে পিয়ংইয়ং সরকার প্রস্তুত রয়েছে কিনা খতিয়ে দেখার জন্য এ যোগাযোগ শুরু হয়েছে বলেও জানান তিনি।

উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে কোরীয় উপসাগরীয় অঞ্চলে বেশ কয়েকদিন ধরে উত্তেজনা বিরাজ করছে। জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা অগ্রাহ্য করে উত্তর কোরিয়া এই কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে। পারমাণবিক কর্মসূচি বন্ধ করতে যুক্তরাষ্ট্র দেশটির বিরুদ্ধে একাধিকবার অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

print

(Visited 25 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ